টাইমস স্কয়ারের খারাপ সময়

Fri, Oct 2, 2020 9:08 PM

টাইমস স্কয়ারের খারাপ সময়

সোহেল মাহমুদ: জুয়া, পর্নোগ্রাফি, সেইসাথে গণিকালয়ের জন্য একসময় দুর্নাম কামানো টাইমস স্কয়ার অন্তত গত দুই দশক ধরে সবার জন্য বিনোদনের সেরা জায়গা হয়ে উঠেছিলো। প্রতিদিন তিন থেকে পাঁচ লাখ মানুষের পা পড়তো এই ছোট্ট একটা চৌমোহনায়।

নিউ ইয়র্কের ম্যানহাটনে মিডটাউন এলাকায় ব্রডওয়ে আর সেভেন্থ এভিনিউর সংযোগস্থলে টাইমস স্কয়ার। যদিও আশপাশের আরো কয়েকটা ব্লক ছাড়িয়েছে এর বিস্তৃতি। একশো বিশ বছর আগে "দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস" প্রকাশক এডলফ ওক্স ঘোড়াগাড়ির বেচাকেনার একটা এলাকায় মানুষের বিচরণে মুনাফা দেখেছিলেন এবং সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন "টাইমস টাওয়ার" গড়ে তুলবেন সেখানে।১৯০৩ সালে তৈরির পর সেটি সিটির দ্বিতীয় উঁচু দালান।

দালান হলো। লং একর নামের সে এলাকা হলো টাইমস স্কয়ার। ১৯০৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর থেকে নতুন বছর পালনের উপলক্ষ শুরু হয় টাইমস টাওয়ারকে ঘিরে। নতুন বছরের ক্ষণ গণনা এবং বল পতনের যে আনুষ্ঠানিকতা, সেটি বিশ্বজুড়ে নববর্ষ পালনের সংস্কৃতি হয়ে উঠেছে যেন।

গবেষণা বলছে, নিউ ইয়র্ক সিটিতে একজন পর্যটকের এক ডলার খরচের ২২ সেন্ট হতো টাইমস স্কয়ার স্কয়ারে। দামী সব ব্রান্ডের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, চোখ ঝলসানো বিজ্ঞাপনী ডিসপ্লে, নাটকপাড়া, সিনেমাহল, মিউজিক হলসহ বিনোদনের নানা আয়োজন। সাথে, মজাদার নানাজাতের খাবারের রেস্টুরেন্ট। কি আছে সেখানে, এর প্রশ্নের উত্তর খোঁজার চেয়েও এ চত্বরে পা না মাড়িয়ে নিউ ইয়র্ক ছাড়া রীতিমতো কল্পনাতীত পর্যটকদের কাছে।

বছরে গড়ে প্রায় ৫ কোটি পর্যটক এসেছে এই চত্বরে। আর, এ চত্বরে পা পড়েছে গড়ে প্রায় ১৩ কোটি মানুষের। পৃথিবীর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পর্যটকের উপস্থিতি ছিলো এই জায়গায়। প্রথম অবস্থান লাসভেগাসের ক্যাসিনো আর বিনোদনকেন্দ্রভিত্তিক পর্যটনের।

কোভিডের কারণে বেহাল দশা সেই টাইমস স্কয়ারের। কয়েক সপ্তাহ এ এলাকা ভ্রমণ বন্ধ ছিলো। খোলার কয়েক সপ্তাহ পরেও প্রাণে ফিরতে পারেনি এ চত্বর। লাখো মানুষের পদচারণায় মুখরিত টাইমস স্কয়ার এখন হাজারের কোটা ছাড়াতে যেন যুদ্ধ করছে। এলাকার থিয়েটার, মিউজিক হল বন্ধ। বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে হিলটন টাইমস স্কয়ারসহ আরো কিছু হোটেল। বন্ধ হয়ে গেছে অনেক ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় টাইমস স্কয়ারে মানুষ ছিলো হাতেগোনা।

সোহেল মাহমুদ, নিউইয়র্ক প্রবাসী সাংবাদিক।

*লেখকের ফেসবুক পোষ্ট


সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
Designed & Developed by Tiger Cage Technology
উপরে যান