‘ঈর্ষাকাতর’ এক প্রবাসীর কান্ড !

Tue, Jun 11, 2019 8:20 PM

‘ঈর্ষাকাতর’ এক প্রবাসীর কান্ড !

শহিদুল ইসলাম : নিউইয়র্কে গ্রোসারী ব্যবসায় প্রবাসী বাঙালিরা খুব ভালো অবস্হায় আছেন। এই শহরের আনাচে-কানাচে তাঁদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নজর কাঁড়ে। দামে তুলনামূলক সস্তা এবং দেশি শাক-সব্জির ও মাছের ‘বছরব্যাপী’ সহজলভ্যতার কারণে এসব গ্রোসারী প্রবাসী বাঙালিদের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয়।

 

দেখা যায় পাশাপাশি একাধিক বাঙালি গ্রোসারী থাকলেও সবগুলোতেই বিকিকিনি ভালোই চলছে। তবে এরমধ্যে যারা একটু ‘ডিসকাউন্ট’ বা “Special Sale” দেন, তাদের দোকান জমজমাট থাকে একটু বেশি। সম্ভবত: এই ‘মূল্যছাড়’ দেওয়াটাই কাল হয়ে গিয়েছিলো নিউইয়র্কের জনপ্রিয় প্রিমিয়াম সুপারমার্কেট মালিকের। এই শহরে তার একাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এরমধ্যে একটি বাঙালি অধ্যুষিত ওজন পার্কে। উদ্বোধন করার পর থেকেই এই গ্রোসারী খুব দ্রুত বিপুলসংখ্যক ক্রেতা আকর্ষণ করতে থাকে। দাম অন্য গ্রোসারী থেকে কম থাকাটা ছিলো এর অন্যতম কারণ।

 

কাছাকাছি দূরত্বে কিছুদিন পর খোলা হয় “দেশি বাজার” নামে আরেকটি গ্রোসারী। কিন্তু ক্রেতার সংখ্যা তেমন ছিলোনা। তো, দেশি বাজার-এর এক অংশীদার মামুনুর রহমান খানের হঠাৎ হয়তো মনে হলো, ‘প্রিমিয়াম’ - এর কারণে তাঁর ব্যবসা ভালো হচ্ছেনা, হওয়ার আশাও নেই। কিছু একটা করা দরকার! ‘প্রিমিয়াম’ দোকানটাই যদি না থাকে তাহলে সবচেয়ে ভালো হয় — এমন চিন্তা থেকেই হয়তো তিনি চরম সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেললেন। একদিন দাহ্য পদার্থি নিয়ে ঢুকে পড়লেন প্রিমিয়াম গ্রোসারীতে এবং দিলেন লাগিয়ে আগুন। পুড়ে বিধ্বস্ত হয়ে গেল প্রিমিয়াম। লোকমুখে রটে গেল এক বাঙালি হয়ে আরেক বাঙালির বিরুদ্ধে তাঁর এই জঘন্য অপকর্ম।

 

সিসিটিভি ক্যামেরায় ধরা পড়েছে মামুনুর খানের কান্ড। বিচার চলছে। অভিযুক্ত হলে ৫ থেকে ২০ বছরের কারাদন্ড হতে পারে তাঁর।

*নিউইয়র্কে বসবাসরত সাংবাদিক শহিদুল ইসলামের ফেসবুক পোষ্ট


Designed & Developed by Tiger Cage Technology
উপরে যান